‘ম্যাচ জিতিয়ে দেয়ার সামর্থ্য একাই আছে সাকিবের’

shakib9.jpg

ক্রিকবিডি২৪.কম রিপোর্ট

বৃষ্টির বাধায় শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে মাঠে নামতে পারেনি বাংলাদেশ। যে কারণে এক পয়েন্ট নিয়েই গতকাল পরের ম্যাচের ভেন্যু টন্টনে পা রেখেছে টিম টাইগার্স। শুরুতেই নতুন পরিবেশে নতুন চ্যালেঞ্জে পড়েছে মাশরাফি বিন মর্তুজার দল। কিভাবে সফল হওয়া যায় সেই মন্ত্রই এখন খুঁজছেন স্টিভ রোডস শিষ্যরা।

টন্টনের মাঠ আয়াতনে ছোট। তাই এখানে আগামী সোমবার ব্যাট হাতে ঝড় তুলতে মুখিয়ে রয়েছেন এভিন লুইস, ক্রিস গেইল, আন্দ্রে রাসেলরা। ব্যাপারটি মুখে না বলেও কেউ বুঝতে বাকি নেই। গতবে লাল-সবুজদের ম্যানেজার খালেদ মাহমুদ সুজন আশা করছেন, প্রতিপক্ষ ব্যাটসম্যানদের ঝড় থামিয়ে একাই ম্যাচ জিতিয়ে দেয়ার খেলোয়াড় রয়েছে বাংলাদেশ শিবিরে। পরে তিনি স্পষ্ট করেই বলেন, সাকিবই দুই দলের মধ্যে গড়ে দেবে পার্থক্য।

প্রথমবারের মতো টাইগাররা খেলতে এসেছে টন্টনে। ছোট এ মাঠে কৌশল কী হবে, সে অভিজ্ঞতা কারও নেই। মাঠের যে আয়তন, বাংলাদেশের বোলারদের বাউন্ডারির ওপারে আছড়ে ফেলতে বেশ সুবিধাই হবে ওয়েস্ট ইন্ডিজ ব্যাটসম্যানদের! তবে খালেদ মাহমুদ অবশ্য এসব নিয়ে ভাবছেন না, ‘মাঠ সবার জন্যই সমান। ওদের পাওয়ার হিটার আছে জানি, জোরে বল করতে পারে, এমন বোলারও আছে। ওদের শক্তি সম্পর্কে জানি। চেষ্টা করব ছোট মাঠ আমরা কীভাবে কাজে লাগাতে পারি।’

ওয়েস্ট ইন্ডিজের ব্যাটসম্যানরা টন্টসে সুবিধা পেলে বাংলাদেশও বসে থাকবে না। তার আগে খালেদ মাহমুদ বলছেন ম্যাচ ঘুরিয়ে দেওয়ার মতো খেলোয়াড় আছেন দলে, ‘এ টুর্নামেন্টে সব দলই আমাদের জন্য হুমকি। টুর্নামেন্টটা অনেক কঠিন। শুধু ওয়েস্ট ইন্ডিজ নয়, যেকোনো দল আমাদের হারিয়ে দিতে পারে। আবার আমরাও যেকোনো দলকে হারিয়ে দিতে পারি। সাকিবের একারই সামর্থ্য আছে ম্যাচ জিতিয়ে দেওয়ার। তামিম-মুশফিকেরও আছে। জানি, ওয়েস্ট ইন্ডিজ শক্তিশালী দল। আপনি যদি আরও সামনে যেতে চান, কঠিন এ পথ পাড়ি দিয়েই যেতে হবে।’

ইংল্যান্ড বিশ্বকাপে দারুণ ছন্দে রয়েছেন সাকিব আল হাসান। আগামী ম্যাচেও সে ধারা ধরে রাখতে চান তিনি। এমনটাই এ তারকার থেকে আশা করছেন খালেদ মাহমুদ। এ ম্যানেজার মনে করেন সাকিব জ্বলেই পুরো দলও জ্বলে উঠবে। তাতে করে ক্যারিবীয়রা পুড়ে ছাই হয়ে যাবে। টাইগাররা ফিরবে জয়ের হাসি নিয়ে। সেটা হলে বিশ্বকাপের চলতি আসরে সেমিতে উঠার পথে কিছুটা হলেও এগিয়ে যাবেন মাশরাফিরা।

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *